1. admin@khoborakhobor.com : খবরাখবর :
বিয়ের দাবি প্রত্যাখ্যান করায় প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে প্রেমিকের আত্মহত্যা - খবরাখবর
শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩, ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন

বিয়ের দাবি প্রত্যাখ্যান করায় প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে প্রেমিকের আত্মহত্যা

  • Update Time : শুক্রবার, ৪ জুন, ২০২১
আত্মহত্যা
আত্মহত্যা

বিয়ের দাবি প্রত্যাখ্যান করায় প্রেমিকাকে ভিডিও কলে লাইভে রেখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে জিহাদী হাসান (২৬) নামে এক প্রেমিক। যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার সাদিপুর গ্রামের তাহের আলীর ছেলে জিহাদীর এ মৃত্যুতে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে এলাকাজুড়ে।

ভিডিও কলে রশি টানিয়ে তার প্রেমিকা সানজিদা হক মিমের কাছে তার শেষ ইচ্ছা জানতে চান। তাকে গ্রহণ করবে কি না, না করলে তিনি আত্মহত্যা করবেন বলে জানান। মিম ভিডিওকলের সব দৃশ্য দেখে তিনি আত্মহত্যা করলে তার কিছু যায় আসে না- এমন কথা শোনার পর জিহাদী আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।
জিহাদী চট্টগ্রামে একটি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্সিতে চাকরি করেন। সেখানেই তিনি আত্মহত্যা করেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে তার মরদেহ চট্টগ্রাম থেকে রওনা হয়েছে বলে তার পরিবার জানায়।
আর প্রেমিকা সানজিদা হক মিম বেনাপোল পোর্ট থানার স্বরবাংহুদা গ্রামের সেলিমুল হকের মেয়ে।
জিহাদীর ছোটভাই মেহেদী হাসান বলেন, প্রায় দুই বছর তার ভাইয়ের সঙ্গে মিমের সম্পর্ক রয়েছে। এই সম্পর্কের জের ধরে তার মা ওই বাড়িতে যাতায়াতও করেছে এবং মিমকে তারা তার ভাইয়ের সাথে বিয়ে দিতেও ইচ্ছা প্রকাশ করে। আর মিম যশোরে লেখাপড়া করায় তাদের সাথে মোবাইলফোনে কথা বার্তাও হতো। তার ভাই মিমকে লেখাপড়ার খরচও দিতো। সম্প্রতি জিহাদী জানতে পারে, মিম আরো কয়েকজনের সাথে প্রেম করে। এসব বিষয়ে কথাবার্তার একপর্যায়ে মিমের কাছে জানতে চায় সে তাকে বিয়ে করবে কি না। না করলে ভাই আত্মহত্যা করবে বলে জানায়। ওইসময় রশি ঝুলিয়ে মিমকে ভিডিওকলে দেখায়ও। মিম এসব দেখেও তাকে বিয়ে করবে না বলে জানায় এবং বলে- আত্মহত্যা করলে তার কিছু যায় আসে না। এরপর জিহাদী বুধবার চট্টগ্রামে নিজ অফিসে আত্মহত্যা করে।
সাদিপুর গ্রামের কয়েকজন জানান, জিহাদী অত্যন্ত সরল সোজা। সে ওই মেয়েকে ভালবাসত। এতে তার পরিবারেরও কোনো আপত্তি ছিল না। আর মেয়েটি প্রায় দুই বছর যাবত তার সাথে প্রেমের অভিনয় করে অর্থও হাতিয়ে নিয়েছে।
এ ঘটনায় সানজিদা হক মিম বলেন, তার সাথে আমার দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্ক। সম্প্রতি সে সিগারেট খাচ্ছে এমন কথা শুনে অভিমান করে তাকে না বলা হয়েছে। তার জন্য সে আত্মহত্যা করবে?
মিমের বাবা সেলিমুল হক বলেন, মেয়ের সাথে জিহাদী নামে একটি ছেলের সম্পর্ক আছে। তাদের বিয়েতে আমার কোনো আপত্তি ছিল না। কেন, কী কারনে, সে আত্মহত্যা করেছে জানি না।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

© khoborakhobor.com All rights reserved
Designed by khoborakhobor@team